বাংলা ফন্ট

অপেরার মঞ্চে আধুনিক সংগীতের রূপায়ণ

20-08-2018
ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 অপেরার মঞ্চে আধুনিক সংগীতের রূপায়ণ
নিউজ ডেস্ক: দুর্বোধ্য হলেও শিল্প উপভোগ করা যায় কি? আইসল্যান্ডের সংগীতশিল্পী বিয়র্ক তাঁর গানে এমন আবহ সৃষ্টি করেন, যা না বুঝেও মুগ্ধ হওয়া যায়৷ এবং সেই গান থেকে প্রেরণা নিয়ে মঞ্চে অপেরা তৈরি হচ্ছে৷

গায়িকা হিসেবে বিয়র্ক কণ্ঠ নিয়ে খেলা করেন, সাউন্ডস্কেপ সৃষ্টি করেন, বর্ণাঢ্য শো-র মাধ্যমে চমক সৃষ্টি করেন৷ মোটকথা তাঁর সম্পর্কে কিছু বলতে গেলে বেশ কিছু সেরা বিশেষণ ব্যবহার করতে হয়৷ তাঁর সংগীত রহস্যে ভরা, অদ্ভুত প্রকৃতির. অনবদ্য ও চিত্তাকর্ষক৷

মঞ্চে ‘রিপ্লেসমেন্ট' নামের অনুষ্ঠান চলছে৷ অপেরার মঞ্চে বিয়র্ক-এর অনবদ্য কণ্ঠ উপস্থাপন করা মোটেই সহজ নয়৷ তাঁর পপ সংস্করণ ও জি ইউন-এর অপেরা সোপ্রানোর মধ্যে তুলনা করলেই তা বোঝা যায়৷ কিন্তু জি ইউন নিজের কণ্ঠ ধরে রাখতে পারেন৷ তিনি কি চিরকাল বিয়র্ক-এর ফ্যান ছিলেন? আগে না হলেও এখন তো বটেই৷

বিয়র্ক-এর অ্যালবাম ‘ভেসপার্টাইন' এই প্রোডাকশনের ভিত্তি৷ তাঁর গানের কথা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে গল্পটি লেখা হয়েছে৷ আইসল্যান্ডের এই গায়িকা অপেরায় সেটি ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছেন, তবে নিজে সেই কাজে অংশ নেন নি৷ ডেনমার্কের ‘হোটেল প্রো ফর্মা' নামের এক গোষ্ঠী শিল্প নির্দেশনার দায়িত্ব নিয়েছে৷ গোষ্ঠীর প্রতিনিধি ইয়ন আর স্কুলবার্গ বলেন, ‘‘আমরা ল্যাবে এক বিজ্ঞানী ও তাঁর মতোই দেখতে আরেক জনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করছি৷''

‘হোটেল প্রো ফর্মা'-র আরেক প্রতিনিধি কিয়র্স্টেন ডেলহল্ম বলেন, ‘‘ভালবাসার বিষয়ে, ভালবাসা নিয়ে ছবি ও সংগীতে ভরা এই অপেরা৷''

‘হোটেল প্রো ফর্মা' তাদের বর্ণাঢ্য মাল্টিমিডিয়া শো-র জন্য বিখ্যাত৷ মিউজিকাল থিয়েটারের নতুন রূপের খোঁজে বিয়র্ক অপেরা তাদের কাছে এক প্রেরণা৷ কিয়র্স্টেন বলেন, ‘‘হোটেল প্রো ফর্মা বিশ্বের সব ধরনের ঘটনা পরীক্ষা করে৷ শিল্প, ভিশুয়াল আর্টস, সংগীত, স্থাপত্য, চলচ্চিত্র ও মুভমেন্ট দিয়ে আমরা সেই কাজ করি৷''

এ ক্ষেত্রে তাঁদের বিষয় প্রেম-ভালবাসা৷ ‘ভেসপার্টাইন' সৃষ্টিকর্মে বিয়র্ক পুরুষ, শিশু ও প্রকৃতির প্রতি তাঁর ভালবাসা নিয়ে গান গাইছেন৷ অপেরার মঞ্চে সেইসঙ্গে বিজ্ঞানের প্রতি ভালবাসা যোগ করা হয়েছে৷ মহাকাশ ল্যাবের দুই গবেষক সেই মঞ্চায়নের প্রাণপুরুষ৷ কিন্তু বিয়র্ক-এর গানের দুর্বোধ্য কথার মতো তাঁদের অভিযানও অস্পষ্ট থেকে যাচ্ছে৷ কিয়র্স্টেন ডেলহল্ম বলেন, ‘‘বিজ্ঞানীরা তাঁদের ল্যাবে কোন ধরনের গবেষণা করছেন, আমরা তা জানি না৷ হয়ত নতুন শরীর, নতুন মানুষ, নতুন যন্ত্র, নতুন বুদ্ধিমত্তা সৃষ্টি করছেন৷''

ইয়ন আর স্কুলবার্গ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘জীববিদ্যা ও প্রকৃতির মধ্যে প্রেম-ভালবাসা কী, মঞ্চে আমরা তা পরীক্ষা করছি৷ কারণ মানুষ হিসেবে আমরা এভাবেই বাঁচি৷''

বিয়র্ক-এর সংগীতের তারিফ করতে হলে তা বোঝার প্রয়োজন নেই৷ অপেরার ক্ষেত্রেও সেই যুক্তি খাটে৷ কণ্ঠ, শব্দ ও ছবি দর্শকদের সুন্দর ও রহস্যময় এক জগতে হাতছানি দিয়ে ডাকে৷ সেটাই আসল অনুভূতি৷

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল


সর্বশেষ সংবাদ