বাংলা ফন্ট

আমার বই ট্রাম্পের পতন ডেকে আনবে: মাইকেল ওলফ

07-01-2018
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

আমার বই ট্রাম্পের পতন ডেকে আনবে: মাইকেল ওলফ
ওয়াশিংটন : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে লেখা বইয়ের লেখক মাইকেল ওলফ দাবি করেছেন, এ বই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের পতন ডেকে আনবে।

সাংবাদিক ওলফের লেখা ‘ফায়ার অ্যান্ড ফারি : ইনসাইড দ্য ট্রাম্প হোয়াইট হাউস’ বইয়ে দাবি করা হয়েছে যে, ২০১৬ সালের নির্বাচনে জয়ের বিষয়টি বিশ্বাস করতে পারেননি ট্রাম্প। এমনকি প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য নয়, বিশ্বখ্যাতি অর্জনের জন্য নির্বাচনে লড়েছিলেন তিনি। কয়েকদিন ধরে বইটি নিয়ে আলোচনার পর শনিবার মুখ খুললেন ওলফ।

বিবিসির টুডে প্রোগ্রামে তিনি বলেন, আমি মনে করি এই বইয়ের মজাদার প্রভাব হল, এর মাধ্যমে ট্রাম্প প্রশাসনের পতন ঘটবে।

শুক্রবার রাতভর টুইটারে মাইকেল ওলফ ও সাবেক প্রধান কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননকে আক্রমণ করেন ট্রাম্প। বইটি মিথ্যায় ভরা বলেও দাবি করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত বইয়ের নাম ‘ফায়ার অ্যান্ড ফিউরি : ইনসাইড দ্য ট্রাম্প হোয়াইট হাউজ’। শুক্রবার মার্কিন সাংবাদিক মাইকেল ওলফের প্রকাশিত এ বইটি নিয়ে শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই নয় সারাবিশ্বে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। এ বইটিতে লেখক ওলফ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মানসিক সুস্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।

বইটি প্রকাশের পর থেকে নানা আলোচনা চললেও এতদিন চুপ ছিলেন ওলফ। অবশেষে মুখ খুললেন তিনি। শনিবার বইটি প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে তিনি দাবি করেন এ বই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের পতন ডেকে আনবে।

বিবিসির টুডে প্রোগ্রামে তিনি বলেন, আমি মনে করি এই বইয়ের মজাদার প্রভাব হল, এর মাধ্যমে ট্রাম্প প্রশাসনের পতন ঘটবে।

শুক্রবার রাতভর টুইটারে মাইকেল ওলফ ও সাবেক প্রধান কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননকে আক্রমণ করেন ট্রাম্প। বইটি মিথ্যায় ভরা বলেও দাবি করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য,‘সিএনএন’র পক্ষে এলিস ল্যাবটের (Elise Labott) নেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এই বই প্রসঙ্গে টিলারসন বলেন, ট্রাম্পের মানসিক স্বাস্থ্য (মেন্টাল ফিটনেস) নিয়ে তার মনে কখনোই কোনো প্রশ্ন জাগেনি।

‘তার (ট্রাম্পের ) মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে প্রশ্ন করার মতো কোনো মতো কোনো কারণও খুঁজে পাইনি।’—এই ছিল টিলারসনের জবাব। কিন্তু কিছুদিন আগেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে যখন তার খটাখটি লাগে, তখন ক্ষুব্ধ টিলারসন ট্রাম্পকে ‘বেকুব’ (‘মোরন’) বলে আখ্যায়িত করেছিলেন।

ব্যক্তিগত রেষারেষি এমন পর্যায়ে চলে গিয়েছিল যে, ট্রাম্প প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়ে বসেন, বুদ্ধির প্রতিযোগিতার (আইকিউ টেস্ট) আয়োজন করা হলে তিনি তার শীর্ষ কূটনীতিককে (টিলারসন) সহজেই টেক্কা দেবেন।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল


সর্বশেষ সংবাদ