বাংলা ফন্ট

মুখরোচক চালের পিঠায় মৃত্যুর আশঙ্কা

04-01-2018
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 মুখরোচক চালের পিঠায় মৃত্যুর আশঙ্কা
ঢাকা: জাপানে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর অংশ হিসাবে যে চালের পিঠা খাওয়ার প্রথা অনেকদিনের, সেই পিঠা খেয়ে এবছরও মারা গেছে দুজন। আহত হয়ে সঙ্কটজনক অবস্থায় রয়েছেন আরও বেশ অনেকজন।

মুখরোচক এই চালের পিঠা দেখে মনে হবে না এটা মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

কিন্তু প্রতিবছর এই খেতে-কঠিন পিঠা বহু মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

প্রতিবছরই নতুন বছরের আগে সরকারকে পিঠা খাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক বার্তা জারি করতে হয়।

কী আছে এই মোচি পিঠায়?

মোচি নামে এই ছোট গোল আকৃতির পিঠাগুলো বানানো হয় নরম কিন্তু আঠালো একরকম চাল দিয়ে।

এই চাল প্রথমে ভাপে সিদ্ধ করা হয়, তারপর তা গুঁড়ো করে মেখে মণ্ড বানানো হয়।

এরপর আঠালো ওই ভাতের মণ্ড থেকে গোলাকৃতি পিঠাগুলো গড়া হয় এবং সেগুলো হয় উনানে বেক করা হয় বা সিদ্ধ করা হয়।

পরিবারগুলো প্রথাগতভাবে সব্জি দিয়ে তৈরি পাতলা ঝোলের মধ্যে ফেলে এই মোচিগুলো সিদ্ধ করে।

কিন্তু মোচি প্রাণঘাতী হয়ে ওঠে কেন?

মোচি পিঠাগুলো আঠালো এবং চিবানো কঠিন। মোচি যেহেতু মুখে পুরে চিবানোর মত ছোট সাইজের নয়, তাই এই পিঠা গেলার আগে ভাল করে তা চিবানোর প্রয়োজন হয়। এই পিঠা চিবাতে হয় অনেকক্ষণ ধরে।

কিন্তু যারা ভাল করে চিবাতে পারে না, যেমন শিশু বা বয়স্ক মানুষ - তাদের জন্য এই পিঠা খাওয়া খুবই কঠিন।

যারা চিবাতে পারে না বা না চিবিয়ে এই পিঠা গিলে খাওয়ার চেষ্টা করে, এই আঠালো মোচি তাদের গলায় আটকে যায় এবং এর ফলে তাদের দমবন্ধ হয়ে যায়।

জাপানী সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী নববর্ষের এই পিঠা গলায় লেগে দমবন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে যাদের জরুরি ভিত্তিতে হাসপাতালে নিয়ে ছুটতে হয়, তাদের বেশিরভাগেরই বয়স ৬৫ বা তার বেশি।

নিরাপদে মোচি খাবার উপায় কী?

চিবানো- ভাল করে চিবিয়ে পিঠা খাওয়া। আর কারোর জন্য যদি সেটা সম্ভব না হয়, তাহলে পিঠা ছোট ছোট টুকরো করে কেটে খাওয়া নিরাপদ।

প্রতিবছর ইংরেজি নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে উৎসব পালনের আগে কর্তৃপক্ষ জনস্বাস্থ্য হুঁশিয়ারি জারি করে -বিশেষ করে শিশু এবং বয়স্কদের জন্য যাতে তারা মোচি পিঠা কেটে ছোট ছোট টুকরো করে সেগুলো খায়।

তবে সতর্কবার্তা সত্ত্বেও প্রতি বছর এই রান্না করা পিঠা খেয়ে মানুষ মারা যাবার ঘটনা ঘটে।

নিহতের সংখ্যা বিশাল না হলেও সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রতিবছর যত মানুষকে হাসপাতালে নিতে হয় তার সংখ্যা নেহায়েত কম নয়।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল



সর্বশেষ সংবাদ