বাংলা ফন্ট

রোনাল্ডোর শততম গোলে রিয়ালের জয়

13-04-2017
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

রোনাল্ডোর শততম গোলে রিয়ালের জয়


মিউনিখ: পিছিয়ে থেকেও বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লীগের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে ২-১ গোলের গুরুত্বপূর্ণ জয় তুলে নিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নস রিয়াল মাদ্রিদ। আর এই ম্যাচে দুটি গোলই এসেছে রিয়ালের পর্তুগীজ তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোর কাছ থেকে। এই দুই গোলে বিশ্বসেরা খেলোয়াড় ইউরোপীয়ান প্রতিযোগিতায় নিজের শততম গোল পূরণ করেছেন।

ম্যাচ শেষে উচ্ছসিত রোনাল্ডো স্থানীয় গণমাধ্যমে বলেছেন, ‘আমি এই রেকর্ড স্পর্শ করতে চেয়েছিলাম। এই ধরনের একটি রেকর্ড গড়া সত্যিই বিশেষ কিছু। তার উপর সেটা যদি হয় বায়ার্নের মত একটি দলের বিপক্ষে তাহলে তো কথাই নেই।’

প্রথমার্ধে আরটুরো ভিডালের হেডে ঘরের মাঠ আলিয়াঁজ এরিনাতে এগিয়ে গিয়েছিল স্বাগতিক বায়ার্ন মিউনিখ। কিন্তু বিরতির ঠিক আগ মুহূর্তে এই ভিডালই পেনাল্টির সুযোগ নষ্ট করলে ব্যবধান দ্বিগুন হয়নি। কিন্ত বিরতির পরপরই রোনাল্ডোর ভলি বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের সমতায় ফেরায়। মাত্র তিন মিনিটের ব্যবধানে দুইবার রোনাল্ডোকে ফাউলের অপরাধে সেন্টার ব্যাক জাভি মার্টিনেজ দুটি হলুদ কার্ড দেখে মাঠের বাইরে চলে গেলে প্রায় আধা ঘন্টা বায়ার্নকে দশজন নিয়ে খেলতে হয়েছে। আর এই সুযোগে ম্যাচের ১৩ মিনিট বাকি থাকতে ম্যানুয়েল ন্যুয়ারের পায়ের মাঝ দিয়ে গোল করে রিয়ালের জয় নিশ্চিত করেন চারবারের বিশ্বসেরা খেলোয়াড় রোনাল্ডো।

ম্যাচ শেষে ন্যুয়ার বলেছেন, আমরা বিশ্বাস করি এখনো আমাদের সুযোগ রয়েছে। প্রথমার্ধে আমরাই ভাল খেলেছি। ঐ সময়ই স্কোরলাইন ২-০ অথবা ৩-০ হতে পারতো।
কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে বায়ার্ন একেবারেই ছন্দহীন ফুটবল খেলেছে। বিরতির পরে রিয়াল ২৩টি শট বায়ার্নের গোলবারে মেরেছে যার বেশীরভাগই ছির বিপদজনক। বায়ার্ন অধিনায়ক ফিলিপ লাম বলেছেন, প্রথমার্ধে সব দিক থেকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রন আমাদের পক্ষে ছিল। কিন্তু সেই ধারাবাহিকতা আমরা ধরে রাখতে পারিনি। বিশেষ করে লাল কার্ডটা ম্যাচে টার্নিং পয়েন্ট ছিল।

আগেরদিন বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের বাসে বোমা হামলার কারনে আলিঁয়াজ এরিনাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ কঠোর ছিল। উভয় দলই কঠোর পুলিশি নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে স্টেডিয়ামে প্রবেশ করে। স্টেডিয়ামের ভিতরে ব্যপক পুলিশ মোতায়েন ছিল। ম্যাচ শুরুর আগে ডর্টমুন্ডের ঘটনার উল্লেখ করা হলে স্টেডিয়ামে পিন পতন নিরাবতা নেমে আসে। ম্যাচ শুরুর আগেই বায়ার্নের জন্য দু:সংবাদ বয়ে নিয়ে আসে দলের সর্বোচ্চ গোলদাতা রবার্ট লিওয়ানোদোস্কির ইনজুরি। কাঁধের ইনজুরির কারনে এবারের মৌসুমে ৩৮ গোল করা এই পোলিশ স্ট্রাইকার খেলতে পারেননি। তার পরিবর্তে থমাস মুলারের ওপরেই আস্থা রাখতে বাধ্য হন্য কোচ কার্লো আনচেলত্তি। এছাড়া দলে আরো ছিলেন না জার্মান ডিফেন্ডার ম্যাটস হামেলস। যে কারনে রিয়ালের শক্তিশালী বিবিসি (গ্যারেথ বেল, করিম বেনজেমা ও রোনাল্ডো) আক্রমনকে সামাল দেয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল। ২৫ মিনিটে প্লেমেকার থিয়াগো আলকানারা ডানদিকের কর্ণার থেকে ভিডালের শক্তিশালী হেড আটকানোর সাধ্য ছিলনা রিয়াল গোলরক্ষক কেইলর নাভাসের। আরিয়েন রবেনের ক্রস থেকে চিলির এই মিডফিল্ডার ব্যবধান দ্বিগুন করতে পারেননি। অন্যদিকে রিয়ালের শুরুটা মোটেই ভাল হয়নি। ন্যুয়ারের জন্য তারা তেমন কোন উল্লেখযোগ্য আক্রমন উপহার দিতে পারেনি। ৪১ মিনিটে রোনাল্ডোর শট ন্যুয়ার আটকে দিলে ফিরতি বলে বেনজেমার প্রচেষ্টা গোলবারে লেগে ফেরত আসে। প্রথমার্ধে এই একটি ভাল সুযোগ সৃষ্টি করেছিল রিয়াল। ফ্রাংক রিবেরির শটে ডানি কারভাজালের হাতে লাগা বল থেকে আদায়কৃত পেনাল্টি কাজে লাগাতে পারেননি ভিডাল। তার স্পট কিকটি গোলবারের অনেক উঁচু দিয়ে বাইরে চলে যায়।

বিরতির দুই মিনিটের মধ্যে কারভাজালের সহায়তায় রোনাল্ডো ম্যাচে সমতা ফেরান। ৫৮ মিনিটে সম্প্রতি গোাঁড়ালির ইনজুরি কাটিয়ে মাঠে ফেরা বেলকে উঠিয়ে নেন রিয়াল বস জিনেদিন জিদান। ঐ সময়ই রোনাল্ডোকে পিছনে থেকে ধাক্কা দেয়ায় মার্টিনেজ প্রথম হলুদ কার্ড পান। তিন মিনট পরেই আবারো পর্তুগীজ তারকাকে ফাউলের অপরাধে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন মার্টিনেজ। ৭৭ মিনিটে বেলের পরিবর্তে মাঠে নামা মার্কো আসেসনিও পাস থেকে রোনাল্ডো বল জালে জড়ালের রিয়ালের জয় নিশ্চিত হয়।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইচএমএল

সর্বশেষ সংবাদ