বাংলা ফন্ট

বিশ্বকাপে খেলতে মুখিয়ে আছেন তামিম

29-04-2018

 বিশ্বকাপে খেলতে মুখিয়ে আছেন তামিম
ক্রীড়া ডস্ক: কয়েক আসর পরপর পরিবর্তন হচ্ছে ওয়ানডে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফরম্যাট। আগামী বছর ইংল্যান্ডের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপে আইসিসি ফিরে যাচ্ছে অতীতের ফরম্যাটে। ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপের মতোই এবার প্রথম পর্বে দলগুলো সবাই পরস্পরের বিপক্ষে খেলবে। ২০১৯ বিশ্বকাপেও ১০টি দল অন্তত নয়টি করে ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে। তারপর সেরা চার দল নিয়ে সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। পরে শীর্ষ দুই দল খেলবে ফাইনালে।
 
এমন ফরম্যাটের বিশ্বকাপে খেলতে মুখিয়ে আছেন বাংলাদেশের ওপেনার তামিম ইকবাল। সম্প্রতি প্রকাশিত বিশ্বকাপের সূচি দেখে রোমাঞ্চিত এ অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। ফরম্যাটটা অনেক চ্যালেঞ্জিং হবে বলেই মনে করেন তিনি। তার মতে, বিশ্বকাপ জিততে একটি দলকে পুরো টুর্নামেন্ট জুড়েই ভালো খেলতে হবে।
 
হাঁটুর চোটে ভোগা তামিমের রিহ্যাব প্রায় শেষ পর্যায়ে। গতকাল রানিং শুরু করেছেন তিনি। বিশ্বকাপ ভাবনা জানাতে গিয়ে গতকাল তামিম সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে খুবই রোমাঞ্চিত। একটা টুর্নামেন্টে সবার সঙ্গে খেলা, এই সুযোগ আমরা পাব। প্রতিটি টেস্ট খেলুড়ে দেশের সঙ্গে খেলা হবে, একটা সহযোগী দেশও আছে। ফরম্যাট নিয়ে ব্যক্তিগতভাবে রোমাঞ্চিত। এটা এমন ফরম্যাট, যদি কোনো দল শিরোপা জিততে চায় পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে সেই দলকে ভালো খেলতে হবে। প্রতিটি দলকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। লম্বা সময় ধরে অনেক ম্যাচ জিততে হবে কোয়ালিফাই করতে। ফরম্যাটটা চ্যালেঞ্জিং হবে। আমি খেলতে উন্মুখ।’
 
সর্বশেষ ২০১৫ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছিল বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়া অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব পাড়ি দিয়েছিল বাংলাদেশ ইংল্যান্ডকে হারিয়ে। গ্রুপ থাকলে একরকম হিসেব হয়। তবে আগামী বিশ্বকাপে সেরা চারে যেতে হলে অন্তত ৫-৬টা ম্যাচ জিততে হবে। যা বাংলাদেশের জন্য চ্যালেঞ্জিং হবে বলে জানিয়েছেন তামিম।
 
২৯ বছর বয়সী এ ওপেনার বলেন, ‘গ্রুপ থাকলে বোঝা যায় কয়টা ম্যাচ আমাদের জিততে হবে কোয়ালিফাই করতে। গ্রুপে এক-দুইটা ম্যাচ জিতলে কোয়ালিফাই করা সম্ভব। কিন্তু এখানে হয়তো ৫-৬টা ম্যাচ জিততে হবে কোয়ালিফাই করতে হবে। এটা অবশ্যই একটা চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার আমাদের জন্য। লম্বা সময় ভালো খেলতে হবে। টুর্নামেন্টে যদি আমরা স্মরণীয় করে রাখতে চাই, সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ, বিশ্বকাপের এখনো এক বছর সময় আছে। এই সময়ে যে সিরিজগুলো আছে, আমরা যদি ভালো খেলি, সিরিজ যদি জিতি তবে আত্মবিশ্বাস নিয়ে যাওয়া যাবে।’
 
বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে আত্মবিশ্বাস সঞ্চয় করতে হবে। তামিম তাই এখনই বিশ্বকাপ নিয়ে না ভেবে সামনের সিরিজগুলোতে ভালো করার উপর গুরুত্ব দিতে চান। গতকাল বাঁহাতি এ ওপেনার বলেছেন, ‘বিশ্বকাপে যারা যায় ভালো করতেই যায়। আমি সব সময়ই বলছি এক বছরের পরের চিন্তা না করাই ভালো। তার আগে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিরিজ আছে। এগুলোয় মনোযোগী থাকা ভালো। হ্যাঁ, বিশ্বকাপে যাব ভালো করব, এটা সবাই চাই। এখনই বিশ্বকাপ নিয়ে কথা বলাটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমাদের সামনে যে সিরিজ আসছে, ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর, এশিয়া কাপ, অনেক টুর্নামেন্ট সামনে। তবে চূড়ান্ত লক্ষ্য বিশ্বকাপ, সবাই এখানে ভালো খেলতে চায়। বিশ্বকাপে আমাদের পারফরম্যান্স নির্ভর করে এই সিরিজগুলো আমরা কেমন খেলছি।’
 
এক বছরই বিশ্বকাপ। অথচ এখনও হেড কোচ নেই বাংলাদেশ দলের। কোচ নিয়োগে বিসিবির বিলম্বে সমস্যা দেখছেন না তামিম। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে যেটা ভালো লাগছে, তারা তাড়াহুড়ো করছে না। চাইলে হুট করে একজন নিয়েও আসতে পারত। তাড়াহুড়ো না করে যাকেই নিয়ে আসুক সময় নিয়ে করছে। এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। যথার্থ কোচকে খুঁজতে সময় নিচ্ছে, এটা ভালো দিক।’

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল





সর্বশেষ সংবাদ