বাংলা ফন্ট

উবার-পাঠাওয়ে কর পাচ্ছে না সরকার

12-09-2018
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 উবার-পাঠাওয়ে কর পাচ্ছে না সরকার

ঢাকা: তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে অ্যাপের মাধ্যমে গাড়ি ভাড়ার পদ্ধতি। অ্যাপ পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ভাড়ার টাকার ২০ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত কর্তন করে রাখে। কিন্তু এ ব্যবসা থেকে শুল্ক বা কর বাবদ কোনো অর্থ পাচ্ছে না সরকার।

সরকারকে কোনো কর না দিয়েই রাজধানী ছাড়িয়ে দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে রাইড শেয়ারিং ব্যবসা, বেশ উপার্জন করছে এ সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানগুলো। রাইড শেয়ারিং নীতিমালা বাস্তবে কার্যকর না হওয়ার কারণেই প্রতিষ্ঠানগুলোর আয়, মুনাফা সবই আপাতত শুল্কমুক্ত থেকে যাচ্ছে।

সরকারের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী চলতি বছরের ৮ মার্চ থেকে রাইড শেয়ারিং নীতিমালা কার্যকর হয়েছে। তবে বাস্তবে এখনো কোনো প্রতিষ্ঠানকে বৈধতা দেয়নি সরকার। এর কারণ নীতিমালার শর্ত পূরণ করতে না পারা। পুলিশ কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে যুক্ত অ্যাপ ৯৯৯ নম্বরের মাধ্যমে যাত্রী ও চালকের তথ্য পর্যবেক্ষণের সুযোগ তৈরি হয়নি এখনো। এ কারণে আবেদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া যাচ্ছে না।

এ নিয়ে বিআরটিএর চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান বলেন, রাইড শেয়ারিংয়ে আবেদনকারী কোনো প্রতিষ্ঠানকে এখনো অনুমোদন দেওয়া হয়নি। পুলিশ কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে যুক্ত এসওএস চূড়ান্তকরণের পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সূত্রমতে, বিভিন্ন অ্যাপভিত্তিক প্রতিষ্ঠান মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকারে অ্যাপভিত্তিক পরিবহন সেবা দিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিনই ভাড়া বাবদ কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে। কিন্তু অ্যাপভিত্তিক পরিবহনের আইনি বৈধতা না থাকায় সরকার এ খাত থেকে কিছুই পাচ্ছে না। রাইড শেয়ারিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের অ্যাপে এসওএস (সেভ আওয়ার সোল) বাটন অন্তর্ভুক্তির বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এই বাটনের মাধ্যমে গাড়িচালক ও যাত্রীর তথ্য জিপিএস লোকেশনে স্বয়ংক্রিয়ভাবে পুলিশের ৯৯৯ নম্বরে চলে যাবে। এর ফলে প্রতিটি যাত্রার বিষয়ে অবগত থাকবে পুলিশ। যাত্রী ও চালকের নিরাপত্তায় পুলিশ কন্ট্রোল রুমকে জরুরি বার্তা বা সংকেত পাঠানোর সুযোগ থাকবে এ পদ্ধতিতে। কিন্তু এ ধরনের অ্যাপ চূড়ান্ত করতে পুলিশের সঙ্গে রাইডশেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলোর শিগগির বৈঠক করার কথা রয়েছে।

এর আগে এ সংক্রান্ত বৈঠকে প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অ্যাপ এর শর্ত শিথিল করতে। এ ধরনের প্রযুক্তি স্থাপন করতে সময় লাগবে কারণ তা বিদেশ থেকে আমদানি করা প্রয়োজন। তাই আপাতত বিদেশে স্থাপিত সার্ভারের মাধ্যমে অনুমতি চাওয়া হয়। পুলিশ সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা বৈঠকে জানান, স্বয়ংক্রিয় তথ্য ৯৯৯ নম্বরে যাওয়ার বিষয়ে কম্পিউটার ক্লাউডিং পদ্ধতি অনুসরণ করে কমন ইন্টারফেজের মাধ্যমে ডেটা ইমপোর্ট করে পুলিশ সদর দপ্তরে রাখা যায়। এক্ষেত্রে সিস্টেম আইডি/কলার আইডি রিয়েল টাইম হতে পারে।

পুলিশ সদর দপ্তর থেকে বলা হয়, সকল প্রতিষ্ঠান একটি কমন প্লাটফর্মে ডেটা রাখলে শেয়ারিং করতে সুবিধা হবে। দ্বিমত পোষণ করে রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, একই রকম ডেটা হলে ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকি আছে। বিআরটিএ এর পক্ষ থেকে তখন বলা হয়, রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানের কলসেন্টার প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখতে হবে। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, অনেক রাইডার অফলাইনে রাইড দিচ্ছেন। এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানগুলোকে সতর্ক থাকতে হবে।

বিআরটিএ সূত্রমতে, রাইড শেয়ারিং ব্যবসার জন্য ইতোমধ্যে আবেদন করেছে ১১টি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে রয়েছে পাঠাও, সহজ, চালডাল, আকাশ টেকনোলজি, গোল্ডেন রেন, ও ভাই বাংলাদেশ লিমিটেড, উবার বাংলাদেশ লিমিটেড, রাইডার রাইডশেয়ার এন্টারপ্রাইজ, পিকমি, ইজিয়ার এবং আকিজ অনলাইন লিমিটেড। এসব প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন দেওয়া যাচ্ছে না পুলিশ কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে এসওএস অ্যাপ যুক্ত করার অভাবে। এ নিয়ে শিগগির বিআরটিএ এর পক্ষ থেকে পুলিশ ও অ্যাপভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাগিদ দেওয়া হতে পারে।

সংশ্লিষ্টরা আরও জানান, বিআরটিএ এর ওয়েবসাইট ও প্রতিষ্ঠানের অ্যাপসে গতিবিধি অনুসরণ এবং অনলাইনে অভিযোগ গ্রহণ ও নিষ্পত্তির সুযোগ থাকবে। এর ফলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, যাত্রী হয়রানি, চালকের ভোগান্তিসহ যে কোনো অনিয়ম-দুর্ভোগের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারবে বিআরটিএ।

সূত্রমতে, ২০১৬ সালের নভেম্বরে ঢাকায় ব্যবসা করে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান উবার। এরও আগে, ২০১৫ সালে যাত্রা শুরু করে স্যাম নামের একটি অ্যাপ। এ অ্যাপের মাধ্যমে মোটরসাইকেল ভাড়া করতে পারেন যাত্রী। তবে সর্বাধিক জনপ্রিয় উবার। মোটরসাইকেলের ক্ষেত্রে পাঠাও। উবারের হিসাবে, ঢাকায় প্রতিদিন গাড়িতে অন্তত ১০ হাজার রাইড রিকুয়েস্ট আসে। নভেম্বরে উবার ঢাকায় মোটরসাইকেল ভাড়ার অ্যাপ উবা মোটো চালু করে। যাত্রীর কাছ থেকে প্রাপ্ত ভাড়ার ২৫ শতাংশ কেটে নেয় উবার। অবশিষ্ট ৭৫ শতাংশ গাড়ির মালিকের। এছাড়া মোটরসাইকেলে যাত্রী পরিবহনে প্রতিদিন বিপুলসংখ্যক রাইডার (মোটর সাইকেল চালক) যুক্ত হচ্ছে পাঠাও-এর সঙ্গে।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল


সর্বশেষ সংবাদ