বাংলা ফন্ট

নাস্তিক পণ্ডিতের ভিটা

14-06-2018
লোকমান তাজ

 নাস্তিক পণ্ডিতের ভিটা


অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান একজন বাঙালি বৌদ্ধ প-িত, দার্শনিক। তিনি বাঙালির অহংকার। বিক্রমপুরবাসী অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞানের জন্মস্থানের বাসিন্দা বলে গর্বিত হয়। কিন্তু এর বেশি আর কিছু নয়, তাঁর জন্মভূমি ও দেশ তাঁর বিপুল কীর্তির প্রায় কিছুই ধরে রাখতে পারেনি, তাঁর সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানেনও না অনেকেই। অতীশকে নিয়ে বিশেষ কিছু চর্চাও এদেশে হয়ে ওঠেনি। তিব্বতের ধর্ম, ইতিহাস, রাজকাহিনী, জীবনীগ্রন্থ, স্তোত্রগাথা এবং সর্বোপরি তাঞ্জুর নামে বিশাল শাস্ত্রগ্রন্থ-সঙ্কলনে সে দেশের ধর্ম, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির প্রায় সবগুলো মাধ্যমের মধ্য দিয়ে অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান তিব্বতবাসীর কাছে চিরস্মরণীয় হয়ে আছেন। তাই শ্রীজ্ঞান মহত ও বিপুল কর্মজীবন সম্পর্কে তথ্যপ্রমাণ তিব্বতী সূত্র থেকে সংগ্রহ করা ছাড়া সম্ভবও নয়।
তবে বিক্রমপুরে বৌদ্ধ বিহার আবিষ্কার শ্রীজ্ঞান অতীশ সম্পর্কে নতুন অনেক তথ্য দিচ্ছে। নাটেশ্বরে আবিষ্কৃত হয়েছে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ পিরামিড আকৃতির বিশাল নান্দনিক নিদর্শন, রামপাল ইউনিয়নের রঘুরামপুর গ্রামে বৌদ্ধ বিহারের ৬টি ভিক্ষু কক্ষ, একটি মণ্ডপ ও পঞ্চস্তূপ আবিষ্কৃত থেকে পাওয়া যেতে পারে অতীশের শৈশবের চিত্রপট।
অতীশের জন্ম বিক্রমপুর পরগণার (প্রাক্তন ঢাকা জেলা, বর্তমান মুন্সিগঞ্জ জেলা) ৯৮০, মতান্তরে ৯৮২ খ্রিস্টাব্দে বজ্রযোগিনী গ্রামে। তাঁর জন্মস্থানের বাস্তুভিটাকে এখনো স্থানীয় জনগণ ‘নাস্তিক পণ্ডিতের ভিটা’ বলে অভিহিত করে। তাঁর পিতা কল্যাণশ্রী ছিলেন পাল রাজাদের অধীনস্থ সামন্ত রাজা। অতীশের মাতার নাম প্রভাবতী, তিনি অতীশের জন্মনাম রেখেছিলেন চন্দ্রগর্ভ। প্রথম জীবনে তিনি তান্ত্রিক দীক্ষা গ্রহণ করেন এবং তাঁর তান্ত্রিক নাম হয় জ্ঞানগুহ্যবজ্র। বৌদ্ধ ধর্মে ভিক্ষু দীক্ষা গ্রহণ করলে তাঁর নাম হয় দীপঙ্কর। এ নামেই তিনি খ্যাতি লাভ করেন।
ছোট বেলায় দীপঙ্কর তাঁর মায়ের কাছে প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করেন। তাঁর বাড়ির নিকটে ‘বাজাসন’ বা ‘বজ্রাসন’ নামে একটি বৌদ্ধ বিহার ছিল বলে জানা যায়। দীপঙ্কর ওই বিহারে কিছু কাল অধ্যয়ন করেছিলেন। পূর্বের বঙ্গ ও সমতট অঞ্চলের রাজধানী বিক্রমপুরে অবস্থিত নাটেশ্বর গ্রামে মাটির নিচে আবিষ্কার হওয়া প্রাচীন বাংলার বৌদ্ধদের বিশাল স্মৃতিচিহ্ন, দেউল অনেক তথ্য দিতে শুরু করেছে। ধারনা করা হয় প্রখ্যাত পণ্ডিত অতীশ দীপঙ্করের বাল্যজীবন, শিক্ষালাভ নাটেশ্বর বৌদ্ধ বিহারেই হয়েছিল। বাংলাদেশ ও চীনের প্রতœতত্ত্ব ইনস্টিটিউট বৌদ্ধ বিহারের যে সন্ধান পেয়েছে তাতে অতীশের শৈশবের শিক্ষালাভের অনেক চিত্র চলে আসে। সেই ইঙ্গিত পাওয়া যায় বিক্রমপুরে প্রতœতত্ত্ব খনন কার্যক্রমের পরিচালক এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সুফি মোস্তাফিজুর রহমানের বক্তব্যে- ‘বিক্রমপুর অঞ্চলের ইতিহাস-ঐতিহ্য অনেক বেশি সমৃদ্ধ। কিন্তু এখনও এর প্রায় পুরোটাই অনাবিষ্কৃত রয়ে গেছে। দেউলের ইতিহাস সন্ধানের মাধ্যমে সেই ঐতিহ্যেরও খোঁজ পাওয়া সম্ভব হবে।
বিক্রমপুরের বৌদ্ধ বিহারে শিক্ষালাভ করার পরে শিক্ষাজীবন শুরু হয় নালন্দায়। বিখ্যাত নৈয়ায়িক প-িত জেতারির নিকট তিনি গৌণ-বিজ্ঞান শিক্ষা শুরু করেন, যা পরবর্তীতে তাঁর জন্য ধর্ম ও দর্শন অধ্যয়নের পথ তৈরি করে দেয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নানা বিষয়ে তাঁর অধ্যয়ন শুরু হয়। পাঠ করেন হীনযানীদের ত্রিপিটক, বৈশেষিক দর্শন, মহাযানীদের ত্রিপিটক, মাধ্যমিক ও যোগাচারীদের অধিবিদ্যা ও ৪ ধরনের তন্ত্র। একুশ বছর বয়সেই তিনি দর্শন, সাহিত্য, ব্যাকরণ ও শিল্পকলায় ব্যুৎপত্তি অর্জন করেন। তির্থিকদের শাস্ত্রেও তিনি ব্যুৎপত্তি লাভ করেন এবং এক শিক্ষিত ব্রাহ্মণকে তর্কযুদ্ধে পরাজিত করেন। অতীশের জীবনের প্রথম পর্যায়ের শিক্ষাগুরুদের মধ্যে ছিলেন রাহুল গুপ্ত, শীলরক্ষিত প্রমুখ। অতীশ আকৃষ্ট হয়েছিলেন বৌদ্ধ ধর্মের অনুধ্যানিক বিজ্ঞানের প্রতি, যার ভিত্তি ছিল ত্রিশিক্ষা, নৈতিকতা ও দিব্য শিক্ষণ। রাহুল গুপ্তের অধীনে বৌদ্ধ ধর্মের গুঢ়তত্ত্ব শিক্ষার উদ্দেশ্যে তিনি যান কৃষ্ণগিরি বিহারে। সেখানে কৃতিত্বের জন্য লাভ করেন গুহ্যজ্ঞানবজ খেতাব। ১৯ বছর বয়সে তিনি পবিত্র ব্রত গ্রহণ করেন মহাসংঘিক আচার্য শীলরক্ষিতের কাছে।
অতীশ দীপঙ্করের জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ পর্যায় শুরু হয় সুবর্ণদ্বীপে, যার বর্তমান নাম সুমাত্রা। এক সময় এই দেশটি ছিল প্রাচ্যে বৌদ্ধ ধর্মের প্রধান একটি কেন্দ্র। পাল সাম্রাজ্যের সঙ্গে এর ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। সুবর্ণ দ্বীপে যাবার আগে নানা বিষয়ে অধ্যয়ন অতীশকে অনেকটা অস্থির করে তুলেছিল। নানা বিষয়ের দিকে ধাবিত হচ্ছিল তাঁর মন। এই বিচলন থেকে মনকে সুস্থির করতে তিনি খুঁজছিলেন নিভৃত সাধনার একটি স্থান। সে সময় তাঁর বয়স ৩১ বছর। ব্যবসায়ীদের জাহাজে উঠে ঝড়-ঝঞ্ঝাময় দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে তিনি পৌঁছান সুবর্ণ দ্বীপে। এখানে তিনি কাটিয়েছিলেন ১২ বছর; চন্দ্রকীর্তি ছিলেন তাঁর শিক্ষক। তাঁর আরেক শিক্ষাগুরু ছিলেন ধর্মকীর্তি বা ধর্মরক্ষিত, যার তিব্বতীয় নাম সেরলিংপা। এই ধর্মরক্ষিতের সঙ্গে যে সুবর্ণ দ্বীপেই অতীশের সাক্ষাৎ হয়, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায় না। ধর্মকীর্তির সঙ্গে তার মগধেও সাক্ষাৎ ঘটে থাকতে পারে। সুবর্ণ দ্বীপে আরো যে প-িতদের সঙ্গে অতীশের দেখা হয়, তাঁদের মধ্যে ছিলেন সুখগতি, ধর্মমিত্র, কসলসম্ভব, সুরবজ, দেবমতী, রবিগুপ্ত, ভূমিসার, জ্ঞানসার, ভেগাইন্দ্র, দানশ্রীমিত্র, প্রজাভদ্র, সুচন্দ্রা, সামন্তভদ্র, গুপ্তসার, অনন্তমাটি, রাজসেমেরু, সুরললিতা প্রমুখ। ধর্মকীর্তি ছিলেন বোধিচিত্তের শিক্ষক। তাঁর কাছে অতীশ এমন এক ধরনের ধ্যান শিক্ষা করেন, যার নাম তংলেং ধ্যান। এই ধ্যানের শিক্ষা যে তান্ত্রিক বিভিন্ন নীতির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ তা বলা যায়, কেননা এ ধরনের ধ্যান-যোগের মাধ্যমে দেহের মধ্যে থাকা নেতিবাচক শক্তিকে রূপান্তরিত করা যায় প্রীতিময় ও নিরাময়ের শক্তিতে।
অতীশের জীবনের তৃতীয় পর্যায় শুরু হয় সুবর্ণ দ্বীপ থেকে ভারতবর্ষে ফিরে আসার পর। তিনি মগধে ফিরে আসেন তাম্র দ্বীপ অর্থাৎ শিলং হয়ে। এ সময়ে অনেক প-িত ব্যক্তির সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় তাঁর। এদের কারো কারো সঙ্গে তিনি ধর্ম বিষয়ে তর্কযুদ্ধে অংশ নেন। বজ্রাসনের মহাবোধিতে থাকাকালীন ধর্মবিষয়ক বিতর্কে তিনি তিনবার তীর্থিকদের পরাজিত করেছিলেন। এর মাধ্যমে তিনি বৌদ্ধ ধর্মের মহত্ত্বকে তুলে ধরেন। ক্রমে ধর্ম বিষয়ে অতীশের পা-িত্যের কথা চারদিকে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। বিক্রমশীলা মহাবিহার ছিল পাল রাজাদের প্রতিষ্ঠিত একটি শিক্ষায়তন। মহীপালের আমন্ত্রণে অতীশ এই বিক্রমশীলা মহাবিহারের ‘স্থবির’ পদে অধিষ্ঠিত হন এবং পরে আচার্য হন। এ সময় চেদীরাজ কর্ণ (কণৌজ) মগধ আক্রমণ করেন। এ আক্রমণে নয়পালের সৈন্যরা পরাজিত হয় এবং শত্রু সৈন্যরা রাজধানী পর্যন্ত পৌঁছে যায়। কিন্তু মগধ অধিকার করতে তারা ব্যর্থ হয় এবং অনেক বৌদ্ধমন্দির ও বিহার ধ্বংস করতে থাকে। নয়পালের সৈন্যরা এরপর কর্ণরাজের সৈন্যদের হত্যা করতে শুরু করলে অতীশ তাদের আশ্রয় দেন এবং উভয় পক্ষের মধ্যে সন্ধি স্থাপনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।
অতীশের জীবনের আরেকটি পর্যায় শুরু হয় তাঁর তিব্বতে যাবার ভেতর দিয়ে। তিব্বতে বৌদ্ধ ধর্মবিরোধী রাজা লাং ডারমার বৌদ্ধ ধর্ম ধ্বংসের নীতির ফলে এ ধর্ম যে চরম বিপর্যয়ের মধ্যে পড়েছিল, তা থেকে উত্তরণের জন্য বৌদ্ধ রাজা এশেওড বিশেষভাবে তৎপর হয়েছিলেন পরবর্তীকালে। তিনিই প্রথম অতীশকে তিব্বতে আমন্ত্রণ জানান। বৌদ্ধ ধর্মের পুনর্গঠনে রাজা এশেওড পুরংয়ের থোলিনে একটি বৌদ্ধ মঠ নির্মাণ করেন। সেখানে কিছু তরুণকে বিশেষ গুরুত্বসহকারে বৌদ্ধ ধর্মের শিক্ষা দেয়া হতে থাকে। কিন্তু তিব্বতীয় বৌদ্ধ গুরুদেরকে তিনি পর্যাপ্ত মনে করেননি। কেননা তিব্বতীয় বৌদ্ধ সম্প্রদায়গুলোর বৌদ্ধমত অনেক বিচ্যুত হয়ে পড়েছিল তান্ত্রিক ও পোন মরমীবাদের সঙ্গে মিশ্রণের কারণে। পরে এই তরুণ ভিক্ষুদেরকে কাশ্মীর, মগধ ও ভারতবর্ষের নানা জায়গায় পাঠিয়ে দেয়া হয়, যাতে তারা শুদ্ধ বৌদ্ধমত সম্পর্কে জানতে পারে।
এশেওড বৌদ্ধ ধর্ম পুনর্গঠনের জন্য কাশ্মিরী প-িত রতœবজ্রকে তিব্বতে আনার চেষ্টা করেন। তিব্বতের তরুণ শিক্ষার্থী, যারা মগধে খ্যাতনামা বৌদ্ধ প-িতদের দেখতে পাবেন তাদেরকে আমন্ত্রণ জানাবার নির্দেশ দেন। এ উদ্দেশ্যে মগধে পাঠানো হয় ২১ জন ভিক্ষুকে। উচ্চ তাপমাত্রা, জ্বর, সাপের কামড় ও আরো নানা কারণে এ দলটির ১৯ জনই পথে মারা পড়েন। রিনছেন যান-পো, মহাত্মা লোচভ ও লেগস পাহি শেরাব প্রাণে বেঁচে যান এবং ভারতবর্ষ থেকে তিব্বতে ফিরতে সমর্থ হন। এ তিব্বতীয় ভিক্ষুরা ভারতে এসে খ্যাতনামা প-িতদের কাছে পানি ও সংস্কৃত শেখেন, বৌদ্ধ গ্রন্থাদি পড়েন এবং বিক্রমশীলার আচার্য অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান সম্পর্কে জানতে পারেন। সে সময় লোচভ অতীশ দীপঙ্করকে তিব্বতে যাবার আমন্ত্রণ জানাননি, তা নিছক অপরিণত প্রস্তাব হয়ে পড়তে পারে ভেবেই। তাঁরা তিব্বতে ফিরে রাজা এশেওডকে তাদের বিচিত্র অভিজ্ঞতা, মগধের বিহার, সেখানকার শিক্ষণ ও অতীশ সম্পর্কে জানান।
অতীশ সম্পর্কে জানার পর রাজা এশেওড তিব্বতে বৌদ্ধ ধর্মের পুনর্গঠনের জন্য তাঁকেই উপযুক্ত পণ্ডিত বলে ধরে নেন। তিনি একজন দূত, একশ পরিচারক ও যথেষ্ট পরিমাণ স্বর্ণ উপঢৌকন হিসেবে পাঠান বিক্রমশীলায়। সেই দূত বিক্রমশীলায় গিয়ে অতীশের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রাজার চিঠি ও স্বর্ণ উপহার দেন এবং তাঁকে তিব্বতে যাবার সহৃদয় আমন্ত্রণ জানান। তখন অতীশ উত্তর করেন, ‘তাহলে মনে হচ্ছে, আমার তিব্বতে যাওয়ার পেছনে দুটো কারণ; এক. একরাশ স্বর্ণ আর দুই. অন্যদের ভক্তিতে পূজনীয় হওয়ার বাসনা। আমার কথা হচ্ছে, এই দুটোর কোনোটার জন্যই বর্তমানে আমার কোনো উদ্বেগ নাই।’ এ কথা শুনে রাজার দূত গেয়াৎসন মর্মাহত হন। দেশে ফিরে রাজা এশেওডকে এই ব্যর্থ অভিযানের কথা জানালে তিনিও দুঃখিত হন। রাজা তখন মগধ থেকে দ্বিতীয় কোনো প-িতকে তিব্বতে নিয়ে যাবার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।
পরের ঘটনাপ্রবাহ এমন নাটকীয়ভাবে ঘটতে থাকে যে, সেসব ঘটনা অতীশকে তিব্বতে যাবার সিদ্ধান্ত নিতে বিশেষভাবে ভূমিকা রাখে। রাজা এশেওড বৌদ্ধ পণ্ডিতকে আনার জন্য স্বর্ণ সংগ্রহে নেপাল সীমান্তে গিয়ে বিপদের মুখে পড়েন। রাজাসহ পুরো দলটি গারওয়ালের রাজা গারলংয়ের সৈন্যদের নজরে পড়ে। রাজা গারওয়াল ছিলেন বৌদ্ধ ধর্মের প্রতি শত্রুভাবাপন্ন। তিনি জানতে পারেন, তিব্বতে বৌদ্ধ ধর্মের সংস্কারের জন্যই পণ্ডিত আনতে স্বর্ণ সংগ্রহে এসেছেন তিব্বতের রাজা। অচিরেই গারওয়ালের রাজা তাঁকে বন্দি করেন। তিনি এশেওডকে বৌদ্ধ ধর্ম ত্যাগ করে তাদের ধর্ম গ্রহণ করতে অনুরোধ করেন এবং সেই শর্তে তাকে মুক্তি দেবার প্রস্তাব করেন। কিন্তু রাজা এশেওড তাতে রাজি হন না। অন্যদিকে রাজার বন্দিত্বের কথা শুনে তাঁর পুত্র ও ভ্রাতুষ্পুত্র ছং-চূব-ওড গারওয়ালে উপস্থিত হন একশ ঘোড়সওয়ার সৈন্যসহ। তারা গারওয়াল আক্রমণের কথা ভাবেন। কিন্তু তাতে বন্দি রাজা এশেওডের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবার আশঙ্কা থাকায় তারা এই ভাবনা ছেড়ে দিয়ে সমঝোতার প্রস্তাব দেন। গারওয়ালের রাজা দুটো শর্ত দেন, রাজা এশেওডের ধর্মান্তর, নয়তো রাজার প্রতিকৃতির সমান স্বর্ণ। প্রথম প্রস্তাব রাজা এশেওড বাতিল করেন। দ্বিতীয় প্রস্তাব অনুযায়ী স্বর্ণ সংগ্রহে লেগে যান ছং-চূব-ওড। কিন্তু এত বেশি পরিমাণ স্বর্ণ সংগ্রহ করা দুষ্কর হয়ে পড়ে তার পক্ষে। রাজা এশেওড তখন ভ্রাতুষ্পুত্র ছং-চূব-ওডকে অনুরোধ করেন যে, এই স্বর্ণের বিনিময়ে তাঁর মুক্তির চেষ্টা না করে বরং বৌদ্ধ ধর্মের সংস্কারে প-িতদের নিয়ে আসার জন্য এ অর্থ ব্যয় করা হোক। বৌদ্ধ ধর্মের কারণে কারাগারে তাঁর মৃত্যু বরং মহিমান্বিত হবে। ধর্মের জন্য তাঁর এই প্রাণ উৎসর্গ করাকেই তিনি আনন্দের সাথে মেনে নেন। ছং-চূব-ওড যখন পুনর্বার অতীশকে তিব্বতে আমন্ত্রণ জানান, তখন এ ঘটনার কথা শুনে তিনি আর অস্বীকৃতি জানাননি। তিনি যখন তিব্বতে যেতে রাজি হন, তখন বিক্রমশীলার অধিনায়ক ছিলেন আচার্য রত্নাকর। তিনি অতীশকে তিব্বতে যেতে দিতে রাজি ছিলেন না। কারণ অতীশের অনুপস্থিতিতে বিক্রমশীলা এবং তার অধীন নানা বিহার-সংঘগুলো দুর্দশাগ্রস্ত হয়ে পড়বে বলে তিনি মনে করেছিলেন। অতীশকে আমন্ত্রণ জানাতে আসা তিব্বতী আচার্য বিনয়ধরকে তিনি বলেছিলেন: ‘অতীশ না থাকিলে ভারতবর্ষ অন্ধকার। বহু বৌদ্ধ-প্রতিষ্ঠানের কুঞ্চিকা তাঁহারই হাতে; তাঁহার অনুপস্থিতিতে এই সব প্রতিষ্ঠান শূন্য হইয়া যাইবে। চারিদিকের অবস্থা দেখিয়া মনে হয়, ভারতবর্ষের দুর্দিন ঘনাইয়া আসিতেছে। অসংখ্য তুরস্ক সৈন্য ভারতবর্ষ আক্রমণ করিতেছে; আমি অত্যন্ত চিন্তিত বোধ করিতেছি। তবু, আশীর্বাদ করিতেছি, তুমি অতীশ ও তোমাদের সঙ্গী লইয়া তোমাদের দেশে ফিরিয়া যাও, সকল প্রাণীর কল্যাণের জন্য অতীশের সেবা ও কর্ম নিয়োজিত হউক।’
অতীশ তিব্বতে পৌঁছান কয়েক বছরের দীর্ঘ ভ্রমণ শেষে। তিব্বতের রাজপ্রতিনিধিরা আচার্য দীপঙ্করকে বিপুল সংবর্ধনা প্রদান করেন। তারপর তারা চীনা ড্রাগনের ছবি আঁকা একটি পাত্রে আচার্য অতীশকে তিব্বতী রীতি অনুযায়ী চা পান করতে দেন। তিনি তখন পানীয়টির নাম জানতে চান। লোচাবা ছুলঠিম জলবা এর নাম চা বলে জানান। পাঁচ জন সঙ্গী পরিবৃত হয়ে অতীশ উদাত্ত গম্ভীর স্বরে অনর্গল সংস্কৃত শ্লোক উচ্চারণ করছিলেন। আচার্য তখন এই পানীয়ের পাত্রে চুমুক দিয়ে বললেন, ‘অতি ভালো। অতি ভালো। অতি মঙ্গল। অতি ভালো ই-এ (হয়)’ প্রতিটি সংস্কৃত শ্লোকের শেষে এই বাক্যটি বাংলায় বলতেন। তিনি যে তার মাতৃভাষাকে ভুলতে পারেননি বা ভালোবেসে বারবার উচ্চারণ করেছেন বোঝা যায়। এই বাণীর মধ্য দিয়ে তার বাঙলা ভাষা প্রীতি ছিলো অক্ষয়।
অতীশ দীপঙ্কর তিব্বতে গিয়েছিলেন বৌদ্ধ ধর্ম সংস্কারের কাজে। তিব্বতে বৌদ্ধ ধর্মের পতনের পর সেখানে বৌদ্ধ ধর্মের যে বিশৃঙ্খল ও বিপর্যস্ত দশা সৃষ্টি হয় এবং তত্ত্বচর্চা ও সাধন ধারা নিয়ে যে বিতর্ক ও অস্পষ্টতার সৃষ্টি হয়, অতীশ দীপঙ্কর তা নিরসন করে তিব্বতে বৌদ্ধ চিন্তার নতুন ধারা সৃষ্টি করেন। তাঁর প্রবর্তিত কদম-পা ধারায় তিনি সন্ন্যাসী জীবন ও শৃঙ্খলার ওপর গুরুত্ব দেন এবং সূত্রের শিক্ষা ও তন্ত্রের মধ্যকার পার্থক্য ঘুচিয়ে উভয়ের মধ্যে সামঞ্জস্য প্রতিষ্ঠা করেন। অতীশ তিব্বতীয় বৌদ্ধ ধর্মকে প্রাচীন পোন ধর্মের প্রভাব থেকে মুক্ত করেন। তবে তিব্বতীয় সংস্কৃতির অনিবার্য উপাদানগুলোকে তিনি এই সমন্বিত ধারায় অঙ্গীকৃত করেন। রাজা এশেওড অতীশ দীপঙ্করকে তিব্বতে নেবার উদ্যোগ নিয়েছিলেন তিব্বতীয় বৌদ্ধমত সংস্কারের প্রয়োজনে, বিশেষত বৌদ্ধ ধারাকে পোন ধর্মীয় মরমীবাদ ও তন্ত্রের প্রভাবমুক্ত করতে। তবে অতীশ তাঁর কদম-পা ধারায় তন্ত্রকে গুরুত্ব দিয়ে গ্রহণ করেন, বিশেষত সেই তন্ত্র যার চর্চা তিনি করতেন সুমাত্রায় অবস্থানের সময়, যার নাম তংলেং ধ্যান।
তিব্বতীয় বৌদ্ধমত সংস্কারে প্রধান ভূমিকা পালন করে অতীশ‘ দীপঙ্করের একটি রচনা বোধি-পথ-প্রদীপ। এতে তিনি মাধ্যমিক মহাযান মতের সঙ্গে হীনযান ও বজ্র যানী মতকে সঙ্গতিপূর্ণ করে তোলেন। বোধি-পথ-প্রদীপে অতীশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান সাধকের জন্য একটি ক্রম-অগ্রসরমান পথ সৃষ্টি করে দেয়া। এতে বোধিচিত্ত অর্জন থেকে শুরু করে পারমিতা ধ্যান অর্জন পর্যন্ত সাধকের জন্য ক্রমোন্নতির একটি পথ তিনি প্রদর্শন করেন এবং এর সঙ্গে যুক্ত করেন বিভিন্ন কুশলধর্মকে। বোধি-পথ-প্রদীপ-এ অতীশ তত্ত্বের সঙ্গে ব্যবহারিক চর্চার সমন্বয় সাধন করেন এবং এমন একটি শিক্ষা-পদ্ধতির প্রবর্তন করেন, যার ভেতর দিয়ে ব্যক্তির মানসিক ও নৈতিক পরিবর্তন ঘটানো যেতে পারে।
অতীশের প্রিয়ভাজন শিষ্য নাগছো ছুলঠিম জলবা দীপঙ্কর সম্পর্কে স্তোত্রে বলেছেন:
‘পূর্বের (দেশ) অত্যাশ্চর্য সাহারে
এক মহান নগর ছিল,
তাঁর নাম বিক্রমপুর।
এক রাজগৃত ছিল তার কেন্দ্রস্থলে-
বিরাট বিস্তৃত যে প্রাসাদ
স্বর্ণধ্বজ তাঁর নাম।
(সে দেশের) নৃপতি ছিলেন
রাজস্ত-ধন-জনে চৈনিকরাজ তোঙখুনের
সমান।
কল্যাণশ্রী সেই রাজার নাম
আর তাঁর রাজ্ঞীর নাম প্রভাবতী
(রাজদম্পতির) তিন পুত্র
পদ্মগর্ভ, চন্দ্রগর্ভ আর শ্রীগর্ভ।
মধ্যম সেই সন্তান চন্দ্রগর্ভ-
বর্তমানে মহামান্য গুরু (অর্থাৎ অতীশ)
বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের অলকা চট্টোপাধ্যায় রচিত ‘অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান’ গ্রন্থ থেকে নেয়া।
অতীশ যখন তিব্বতের থলিংয়ে পৌঁছান, তখন তার বয়স ষাট বছর। এর পর ১৩ বছর তিনি বেঁচে ছিলেন। ঘুরে বেড়িয়েছেন তিব্বতের নানা জায়গায়। শুরু করেছিলেন থলিংয়ে, এর পর যান পূর্বের সময়ে বিহারে এবং লাসায়। নানা মঠে ও বিহারে ধর্মকথা প্রচার করেন তিনি, রচনা করেন অনেকগুলো গ্রন্থ। নানা শাস্ত্রগ্রন্থ অনুবাদ করেন তিব্বতীয় ভাষায়। শেষ দিনগুলোতে তিনি ছিলেন লাসার দক্ষিণে অবস্থিত ন্যাথাংয়ে। সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন ৭২ বছর বয়সে।
বাঙালির শ্রেষ্ঠ সন্তান অতীশ দীপঙ্করের দেহভস্ম আনার বিষয়ে ১৯৬৩ সালে মহাসংঘনায়ক বিশুদ্ধানন্দ মহাথের, শ্রীমৎ শুদ্ধানন্দ মহাথের, স্ত্রী ডি,পি, বড়ুয়া চীন ভ্রমণে গমন করেন। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী চৌ এন লাই সেই সময় আচার্য দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞানের পবিত্র দেহভস্ম তাদের হাতে অর্পণ করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন। কিন্তু পরবর্তীকালে চীনের সাংস্কৃতিক বিপ্লবের কারণে এই হস্তান্তর প্রক্রিয়া আর হয়ে ওঠেনি। ১৯৭৮ সালে দেহভস্ম গ্রহণ করার জন্য বাংলাদেশ থেকে প্রতিনিধিদল চীনে গিয়ে উপস্থিত হন। প্রতিনিধি দলের মধ্যে ছিলেন মহাসংঘনায়ক বিশুদ্ধানন্দ মহাথের, শ্রীমৎ শুদ্ধানন্দ মহাথের, এম, আসাফুদ্দৌলা, ড. মাহমুদ শাহ কোরেশী, অধ্যাপক রণধীর বড়ুয়া ও শ্রী অশোক রঞ্জন বড়ুয়া।
চীন বৌদ্ধ সমিতির প্রধান মি. ঝাউ পূ চু বাঙালি অতীশের পবিত্র দেহভস্ম বাঙলাদেশের প্রতিনিধি দলের কাছে হস্তান্তর করেন। ১৯৭৮ সালের ২৮ জুন অতীশের দেহভস্ম স্বদেশে তেজগাঁও বিমান বন্দর দিয়ে ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে এসে পৌঁছে। পরে তা বিক্রমপুর বজ্রযোগিনী গ্রামে অতীশ দীপঙ্করের জন্ম ভিটায় সমাহিত করা হয়। সেই সঙ্গে অতীশের একটি মূর্তি, ছবি, হাতের লেখা পাণ্ডুলিপি আনা হয়।
অতীশ সম্পর্কে বিক্রমপুরের সাংবাদিক ও লেখক গোলাম আশরাফ খান উজ্জ্বল বলেন, অতীশ বাঙালির গর্ব হওয়া সত্যেও বাংলাদেশে তাঁর নামে তেমন কিছুই গড়ে উঠেনি, ঢাকায় অতীশ দীপঙ্কর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাস্তুভিটায় বুড্ডিষ্ট এসোসিয়েশন অব চীন এর সহায়তায় ৭০ ফুট ‘অতীশ দীপঙ্কর স্তূপ’, জাদুঘর, পাঠাগার ও মিলনায়তন নির্মাণ হয়েছে। আর ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে বাংলাদেশ সরকারের সৌজন্যে ‘অতীশ প্যাগোডা। এছাড়া বজ্রযোগিনীতে গ্রামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় করার কথা থাকলেও জমির অভাবে এখনো হয়ে উঠেনি।
তিব্বতী মহাগ্রন্থ তাঞ্জুরে সংরক্ষিত দীপঙ্করের রচনাবলীর মধ্যে যে গ্রন্থগুলির তিব্বতী তর্জমায় তিনি নিজে অংশ নিয়েছিলেন তার সংখ্যা ঊনআশিটি। তারমধ্যে কয়েকটি রচনার নাম হল-
১. অভিসময়-বিভঙ্গ, ২. অমৃতোদয়-নাম-বালবিধি, ৩. অক্ষোভ্য-সাধন, ৪. অষ্টভয় ত্রাণ, ৫. আপত্তি-দেশনা-বিধি, ৬. আর্য-অচল-ক্রোধ-রাজ স্তোত্র, ৭. আর্য-অবলোকিত-লোকেশ্বর-সাধন, ৮. আর্য-গণপতি-রাগ-বজ সময় স্তোত্র, ৯. আর্য-তারা-স্তোত্র, ১০. আয়ুঃ -সাধন, ১১. এক-স্মৃতি-উপদেশ, ১২. কর-বিভঙ্গ, ১৩. কর্ম-আবরণ-বিশোধন-বিধি-ভাষ্য, ১৪. কায়বাক্-চিত্ত-সুপ্রতিষ্ঠা, ১৫. থসর্পন-অবলোকিত-সাধন, ১৬. গর্ভ-সংগ্রহ, ১৭. চর্যা-গীতি-বৃত্তি, ১৮. চর্যা সংগ্রহ-প্রদীপ, ১৯. চিতা-বিধি, ২০. চিত্তোৎপাদ-সম্বর-বিধি-ক্রম ২১. জল-বলি-বিমল-গ্রন্থ, ২২. তারা-ভট্টারিকা-সাধন, ২৩. দশ-অকুশল-কর্ম-পথ-(দেশনা), ২৪. দীপঙ্কর-শ্রীজ্ঞান-ধর্ম-গীতিকা, ২৫. দেব-পূজা-ক্রম, ৩০. প্রজ্ঞাপারমিতা-পি-ার্থ-প্রদীপ, ৩৩. বোধি-পথ-প্রদীপ, ৪৭. বজ যোগিনী-সাধনা, ৫০. বজাসন-বজ গীতি, ৫৩. বিমল-রতœ-লেখ, ৭৯. হূদয়-নিক্ষেপ।
তাঞ্জুরে সংরক্ষিত দীপঙ্করের যে রচনাবলীর তিব্বতী তর্জমায় তিনি নিজে অংশগ্রহণ করেননি তার সংখ্যা ৩৮। কয়েকটির নাম- ১. অধ্যয়ন-পুস্তক-পঠন-পুরস্ক্রিয়া-বিধি, ২. অমিতাভ-হূদয়-রাগ-যমারি-সাধন, ৩. আর্য-গণপতি-চিন্তা-রতœ (সাধন), ৪. আর্য-ষড়ক্ষরী-সাধন, ১৪. চর্যাগীতি, ১৫. দ-ধূক্-বিদার-যমারি-নাম-সাধন, ১৬. প্রতীত্য-সমুৎপাদ-হূদয়-মন্ত্র-প্রক্রিয়া-সূক্ষ্ম-ব্যুহ ১৭. প্রজ্ঞা-সুখ-পদ্ম-যমারি-সাধন, ১৮. পারমিতা-যান-সঞ্চ (ক) নির্বপণ-বিধি, ১৯. বলি-বিধি, ২০. বোধিসত্ত্ব-চর‌্যাবতার-ভাষ্য, ২১. বোধিসত্ত্ব-চর্যা-সূত্রীকৃতাববাদ, ২২. বোধিসত্ত্ব-মণ্যবলী, ২৩. মহাসূত্র-সমুচ্চয়, ২৬. রতœলঙ্কার-সিদ্ধি।
সূত্র: ১. অলকা চট্টোপাধ্যায়, ‘অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান’, ২. ড. নীহাররঞ্জন রায়, ‘বাঙালির ইতিহাস-আদিপর্ব’, ৩. ড. রবীন্দ্র বিজয় বড়ুয়া, ‘দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান অতীশ’, ৪. প্রফেসর ড. রামদুলাল রায়, ‘বাঙালির দর্শন’, ৫. প্রবন্ধ, ইত্তেফাক, ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৫, বিপ্রদাশ বড়ুয়া, ৬. প্রবন্ধ, বণিক বার্তা, ৩১ জুলাই ২০১৬, রায়হান রাইন।

সর্বশেষ সংবাদ