বাংলা ফন্ট

নেপালে আনন্দ ভ্রমণ অতঃপর...

18-03-2018
শেখ রাসেল ফখরুদ্দীন

  নেপালে আনন্দ ভ্রমণ অতঃপর...

মুন্সীগঞ্জ: বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণে নেপাল যাত্রা করেছিলেন মুন্সীগঞ্জের শাহীন বেপারী। লক্ষ্য ছিল নেপালের দর্শনিয় স্থান দেখার; কিন্তু ভাগ্য তাকে দেখিয়ে আনলো নেপালের হাসপাতাল। ঢাকা থেকে নেপালের কাঠমান্ডুর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া ইউএস বাংলার যাত্রী ছিলেন শাহীন বেপারী। বিমানটি কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত হলে ভাগ্যক্রমে বেঁচে নেপালের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।
 
নেপালের চিকিৎসা শেষে আহত মুন্সীগঞ্জের শাহীন বেপারীকে ঢাকায় আনা হয়েছে।

তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে তাকে ভর্তি করানো হয়।

রোববার বিকেল ৫টা ৮ মিনিটের দিকে তাকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স ঢামেক হাসপাতালে পৌঁছে। এর আগে ইউএস-বাংলার তত্ত্বাবধানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি-০৭২ ফ্লাইটে বিকেল ৩টা ২০ মিনিটে তিনি ঢাকায় নামেন।

এ নিয়ে প্লেন দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ৬ বাংলাদেশি দেশে ফিরলেন। নেপালের স্থানীয় সময় দুপুর দেড়টায় তিনিসহ অন্য যাত্রীদের বহনকারী ফ্লাইটি ছেড়ে আসে। শাহজালাল বিমানবন্দরে নামার পর তাকে সরাসরি ঢামেক হাসপাতালে নেওয়া হয়।

জানা গেছে, শাহীন বেপারীকে ঢামেকের নতুন ভবনের ৬ তলায় কেবিন নিয়ে যাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, শাহীন বেপারী মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার কলমা ইউনিয়নের বান্দেগাঁও গ্রামের মরহুম সাইফুল ইসলামের ছেলে। তিনি স্ত্রী-কন্যা নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে বসবাস করেন।

বাংলাদেশ শান্তি সংঘের সাংগঠনিক সম্পাদক তাজুল ইসলাম রাকিব জানান, "শাহীন বেপারী বাংলাদেশ শান্তি সংঘের সদস্য এবং ঢাকা সদরঘাট এলাকার বিক্রমপুর গার্ডেন সিটিতে মেসার্স করিম অ্যান্ড সন্স নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত"।
তিনি কোম্পানি থেকে বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণে নেপাল গিয়েছিলেন।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল



সর্বশেষ সংবাদ