বাংলা ফন্ট

কাফনের কাপড় পরে চবিতে অবস্থান দিয়াজের মায়ের

27-11-2017
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 কাফনের কাপড় পরে চবিতে অবস্থান দিয়াজের মায়ের

চবি: ছেলে হত্যার এক বছরেও হত্যাকারীদের কেউ গ্রেপ্তার না হাওয়ায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) ও প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি করে অবস্থান কর্মসূচিতে বসেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর মা।

সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার থেকে দিয়াজের মা জাহেদা আমিন চৌধুরী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবনের সামনে বঙ্গবন্ধু চত্বরে অবস্থান কর্মসূচিতে বসেন। এ সময় তার পরনে ছিল কাফনের কাপড়।

অবস্থান কর্মসূচি শুরুর সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের লোকজন জাহেদা আমিন চৌধুরীকে সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে তিনি কান্না করতে থাকেন।

দিয়াজ হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ইফতেখার উদ্দিন ও প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরীর পদত্যাগ না করা পর্যন্ত তিনি এ কর্মসূচি পালন করে যাবেন বলে জানান।

গত বছরের ২০ নভেম্বরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ নম্বর গেইট এলাকার বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় দিয়াজের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
লাশ উদ্ধারের পর দিয়াজের অনুসারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা দাবি করেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের টেন্ডার নিয়ে জটিলতার জেরে দিয়াজকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

এর মধ্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রথম ময়নাতদন্তের পর ২৩ নভেম্বর চিকিৎসকরা ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় এই সহ-সম্পাদক ‘আত্মহত্যা করেছেন’ বলে জানান।

কিন্তু ওই ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা টিপু ও সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেন চৌধুরীসহ ১০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন দিয়াজের মা জাহেদা আমিন চৌধুরী।

পরে আদালতের নির্দেশে দ্বিতীয় ময়নাতদন্তের জন্য দিয়াজের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আবার ময়নাতদন্তের পর চিকিৎসকরা দিয়াজের দেহে জখম পাওয়ার কথা জানান।

গত ২০ মার্চ ডা. সোহেল মাহমুদের নেতৃত্বে ফরেনসিক বিভাগের একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, একমাসের মধ্যে দিয়াজের দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন দেয়া হবে।

২০১৬ সালের ২৩ নভেম্বর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে দিয়াজের মৃত্যু আত্মহত্যাজনিত কারণে বলে মত দেন ১ম ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকরা। এ প্রতিবেদন প্রত্যাখান করে গত ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিপলু কুমার দে’র আদালতে দিয়াজের মা জাহেদা আমিন চৌধুরী বাদী হয়ে হত্যা মামলা করেন।

দিয়াজের মায়ের মামলা
দিয়াজের মা জাহেদা আমিন চৌধুরী বাদী হয়ে চট্টগ্রামের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শিপলু কুমার দের আদালতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেন, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আলমগীর টিপু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জামশেদুল আলম চৌধুরী, ছাত্রলীগ নেতা রাশেদুল আলম, আবু তোরাব, মিনহাজুর রহমান, মো. আরমান, আরিফুল হক, আবদুল মান্নান ও মনসুর আলমকে আসামি করে মামলা করেছিলেন।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল



সর্বশেষ সংবাদ