বাংলা ফন্ট

এক হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে মামলা

28-11-2017
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 এক হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে মামলা
নিউজ ডেস্ক: অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে আমদানি করা ১২ কন্টেইনার ভর্তি আমদানি নিষিদ্ধ বিভিন্ন পণ্য আটকের ঘটনায় দুটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। গতকাল রাজধানীর পল্টন মডেল থানায় প্রায় এক হাজার কোটি টাকার মানি লন্ডারিং (অর্থপাচার) সংক্রান্ত ফৌজদারি মামলা দায়ের করেছে। গত ৫ ও ৬ মার্চ চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানি নিষিদ্ধ সিগারেট ও মদ এবং অবৈধভাবে আনা বিপুল পরিমাণ টেলিভিশন ও পুরাতন ফটোকপি মেশিনভর্তি ১২টি কন্টেইনার জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা।
 
মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান। উক্ত ১২টি কন্টেইনারের মাধ্যমে আনীত পণ্যের ঘোষিত মূল্য ছিল ৫০ লক্ষ টাকা। কিন্তু আটককৃত পণ্যের প্রকৃত বাজারমূল্য প্রায় ১৩৪ কোটি টাকা। পোল্ট্রি ফিডের মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানির ঘোষণা দিয়ে এই বিপুল পরিমাণ পণ্য আমদানি করা হয়। কিন্তু কন্টেইনার খুলে কোনোটিতেই ঘোষিত পোল্ট্রি পণ্য পাওয়া যায়নি।
 
হিনান আনহুই এগ্রো এলসি ও এগ্রো বিডি অ্যান্ড জেপি নামের দুটি অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের নামে মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আনে আমদানিকারক খোরশেদ আলম। মূলধনী যন্ত্রপাতি ঘোষণায় চীন থেকে আনা চালান দুটি খালাসের দায়িত্বে ছিল সিএন্ডএফ প্রতিষ্ঠান রাবেয়া এন্ড সন্স।
 
মামলার আসামি হলেন আব্দুল মোতালেব, সিএন্ডএফ মেসার্স রাবেয়া এন্ড সন্স এর স্বত্বাধিকারী জালাল উদ্দিনসহ সাতজনকে আসামি করা হয়।
 
ড. মইনুল খান বলেন, এসব পণ্য জাহাজ থেকে বন্দরে নামানোর পর দ্রুত খালাস করে নেওয়ার প্রক্রিয়া গুছিয়ে আনেন। তবে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের তত্পরতায় একপর্যায়ে আমদানিকারক ও সিএন্ডএফ এজেন্ট মালিক আত্মগোপনে চলে যান। এখন পর্যন্ত তারা পলাতক।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল



সর্বশেষ সংবাদ