বাংলা ফন্ট

রঙের উৎসবে যে দিকে খেয়াল রাখবেন

28-02-2018
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 রঙের উৎসবে যে দিকে খেয়াল রাখবেন
ঢাকা: দোল খেলার আগে জেনে নিন কী কী করবেন আর কী কী করবেন না।

খেলার আগে

১। চুল: দোল খেলার আগে চুল পরিষ্কার করে ধুয়ে তেল মেখে নিন। চুলে তেল থাকলে সহজে রং বসে যেতে পারবে না। আবার নোংরা থাকলে মাথার ত্বকের ক্ষতি হবে। তাই চুল পরিষ্কার করে নেবেন।

২। ত্বক: মুখে ভাল করে ক্রিম মেখে নিন। গোটা শরীরে মাখুন নারকেল তেল। এতে রং যেমন ত্বকে বসে যাবে না, তেমনই পরে তোলাও সহজ হবে।

৩। পোশাক: দোলের সময় হালকা রঙের পোশাক না পরে কালো, নীল বা গাঢ় রঙের পোশাক পরুন। চেষ্টা করুন হালকা সুতির জামা পরতে যাতে ভিজে গেলেও তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়।

৪। স্কার্ফ: চুল বা আবির চুলে যতটা সম্ভব কম লাগানো যায় তত ভাল। তাই অবশ্যই পারলে মাথায় স্কার্ফ বেধে নিন।

৫। নেলপলিশ: রঙের হাত থেকে নখ রক্ষা করতে দু’হাত-পায়ের নখে মোটা করে গাঢ় রঙের নেলপলিশের কোট লাগিয়ে নিন। ছেলেরা রঙিন নেলপলিশের জায়গায় লাগাতে পারেন ট্রান্সপারেন্ট নেল এনামেল।

৬। সানগ্লাস: শরীরের সবচেয়ে সংবেদনশীল অংশ চোখ। তাই চোখকে রক্ষা করা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। খেলার সময় অবশ্যই সানগ্লাস পরে খেলবেন যাতে কোনও ভাবেই রং ঢুকতে না পারে।

৭। লেন্স: যদি আপনি লেন্স পরেন তাহলে অবশ্যই খেলার আগে তা খুলে নিন। লেন্সে রং ঢুকে গেলে চুলের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে।

৮। ডেন্টাল ক্যাপ: দাঁতে রং লেগে গেলে সেই রং পেটে গিয়ে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। তাই খেলার সময় পরে নিতে পারেন ডেন্টাল ক্যাপ।

খেলার সময়

১। রং: চেষ্টা করুন যতটা সম্ভব হার্বাল রং ও আবির ব্যবহার করতে। যদি সম্ভব না হয় তাহলে অবশ্যই রঙের মানের উপর নজর রাখুন। খারাপ মানের রং ত্বকের ক্ষতি করে।

২। কোন রং: কমলা, নীল, সবুজ, হলুদ, বেগুনি রঙে কেমিক্যালের পরিমাণ বেশি থাকে। এই সব রং এড়িয়ে চলাই ভাল। লাল বা গোলাপি রঙেই সীমাবদ্ধ রাখুন।

৩। পিছন থেকে: খেলার সময় আমরা অনেক সময়ই পিছন থেকে জড়িয়ে ধরি। এতে চোখে, মুখে, কানে রং আচমকা রং ঢুকে বড়সড় বিপদ ডেকে আনতে পারে। কেউ পিছন থেকে রং দিতে এলে মাথা নামিয়ে নিন, চোখ বুঝে ফেলুন, ঠোঁট শক্ত করে চেপে রাখুন।

৪। ছোড়াছুড়ি: খেলার সময় আমরা দূর থেকে আবির ছুড়ি, রং জল ভরে বেলুন ছুড়ি। এ সব থেকে একেবারেই দূরে থাকুন। আবির চোখে ঢুকে বিপদ যেমন হতে পারে তেমনই জল ভরা বেলুন বুকে, ঘাড়ে, পিঠে আচমকা লেগে মারাত্মক আঘাতও পেতে পারেন।

৫। লাফালাফি: রং খেলার সময় অতিরিক্ত লাফালাফি করবেন না। ভেজা মাটিতে পা পিছলে পড়ে আঘাত পেতে পারেন। হাত, পা ভেঙে পর্যন্ত যেতে পারে।

৬। জোরাজুরি নয়: খেলার সময় অনেকেই মাত্রা হারিয়ে ফেলি। অনিচ্ছুক ব্যক্তিকেও জোর করে রং মাখিয়ে দিই। যে খেলতে চাইছে না তাকে জোর করবেন না। যারা ইচ্ছুক তাদের সঙ্গেই আনন্দ করুন।

৭। নেশা: দোল খেলার সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে রয়েছে সিদ্ধ, ভাঙ। যদি নেশা করতে হয় তাহলে অবশ্যই খেলার পর করুন। নেশা করে খেলতে যাবেন না। টাল সামলাতে না পেরে অবাঞ্ছিত বিপদ ডেকে আনবেন। যদি নেশা করে খেলতে নামেন তাহলে সামান্য অসুবিধা হলেই খেলা বন্ধ করুন।

খেলার পর

১। স্নান: খেলার পর সঙ্গে সঙ্গে স্নান করতে ছুটবেন না। রোদে হুড়োহুড়ি করে এসেই স্নান করতে গেলে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন।

২। মুখ: প্রথমেই জল দিয়ে মুখ ধুতে যাবেন না। ক্লিনজিং মিল্ক তুলো দিয়ে আগে মুখ পরিষ্কার করুন। এতে অতিরিক্ত রং উঠে যাবে। তার পর জল দিয়ে ভাল করে মুখ ধুয়ে নিন। যদি পুরো রং না ওঠে তাহলে অতিরিক্ত ঘষাঘষি করবেন না। দু’-তিন দিনে উঠে যাবে।

৩। চুল: প্রথমে চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ে নিন। এতে গুঁড়ো রং ঝরে যাবে। তারপর শুধু জল দিয়ে ধুয়ে নিন। রঙিন জল বেরনো বন্ধ হলে তারপর ভাল করে শ্যাম্পু করুন। এই দিন কিন্তু দু’-তিন বার শ্যাম্পু লাগাতে হবে। তাই কন্ডিশনার অবশ্যই লাগাবেন।

৪। নেশা: ভাঙের নেশা হয়ে গেলে স্নান করতে যাবেন না। চুপচাপ এক জায়গায় বসে থাকুন। নিজেকে সময় দিন। ধাতস্ত হলে তার পর স্নান করুন। এবং অবশ্যই নেশা হয়ে গেলে গাড়ি চালাবেন না।

৫। জল: রোদে অতিরিক্ত খেলা, গরম, নেশার ফলে শরীরে জলের ঘাটতি হবে। তাই খেলার পর এ দিন আপনাকে বেশি করে জল খেতে হবে। ফলের রস খেয়ে নিজেকে হাইড্রেটেড রাখুন।

৬। বিশ্রাম: খেলা সেরে উঠেই পার্টি করতে চলে যাবেন না। ক্লান্তি ও নেশার কারণে বিশ্রাম নেওয়া খুব জরুরি। তাই অবশ্যই অনন্ত দু’ঘণ্টা বিশ্রাম নিন। তবে যতই ক্লান্ত লাগুক না খেয়ে ঘুমোবেন না।

কী কী সমস্যা হতে পারে

১। অ্যালার্জি: হাতের কাছে রেখে দিন অ্যান্টি অ্যালার্জির ওষুধ। খেলার পর যদি মনে হয় অসুবিধা হচ্ছে দেরি না করে খেয়ে নিন। যদি সমস্যা বাড়ে অবশ্যই চিকিত্সকের কাছে যান।

২। মাথা যন্ত্রণা: রোদে দোল খেলে বা নেশা চড়ে মাথা যন্ত্রণা হওয়া খুব স্বাভাবিক। এমনটা হলে ওষুধ খেয়ে অবশ্যই বিশ্রাম নিন। সঙ্গে অবশ্যই নিজেকে হাইড্রেটেড রাখবেন।

৩। পেট খারাপ, বমি: রং পেটে চলে গিয়ে বা ভাঙের প্রভাবে পেট ব্যথা, বমির সমস্যা হওয়াটাও খুবই স্বাভাবিক। এ রকম কিছু হলে অবশ্যই চিকিত্সকের কাছে যান।

৪। চোখ: আগেই বলেছি চোখ সবচেয়ে সংবেদনশীল অঙ্গ। তাই চোখে কোনও রকম সমস্যা হলে অবিলম্বে ডাক্তারের কাছে যান। অবশ্যই রং খেলা হাত চোখে দেবেন না।

৫। আঘাত: হাতের কাছে পেনকিলার, বরফ রাখুন। খেলতে খেলতে পড়ে গিয়ে বা আচমকা আঘাত লাগলে পেনকিলার খেয়ে নিন। ব্যথা না কমলে ডাক্তারের কাছে কিন্তু যেতেই হবে।

কী কী অবস্থায় দোল খেলবেন না

১। অ্যালার্জি: যদি রং বা আবিরে অ্যালার্জি থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই খেলা থেকে বিরত থাকুন।

২। চোখের সমস্যা: চোখে কোনও অ্যালার্জি, ইনফেকশন থেকে থাকলে দোল খেলা একেবারই উচিত্ নয়।

৩। ত্বকের সমস্যা: যদি আগে থেকেই ত্বকের কোনও সমস্যা থেকে থাকে, ইনফেকশন, ক্ষত হয়ে থাকে তাহলে রং খেলা থেকে বিরত থাকুন।

৪। আঘাত: হাত, পা, ঘাড় কোথও যদি আগে থেকেই আঘাত লেগে থাকে তাহলে সাবধান।
         

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল


সর্বশেষ সংবাদ