বাংলা ফন্ট

জেনেটিক্যাল দুর্বলতায় হারিয়ে গেছে মানব প্রজাতির নিয়ান্ডারথালরা

23-12-2017
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 জেনেটিক্যাল দুর্বলতায় হারিয়ে গেছে মানব প্রজাতির নিয়ান্ডারথালরা
ঢাকা: ফ্রান্সের ব্রুনিকিল গুহার ভেতরে ১ লাখ ৭৬ হাজার বছর আগের একটি মঞ্চ কাঠামো পাওয়া গেছে। প্রবেশদ্বার থেকে ৩০০ মিটার বিস্তৃত দু’টি রিং ও বেশ কয়েকটি গোলাকার বস্তুর এ কাঠামো তৈরি করেছিল আমাদের মানব প্রজাতি হোমো স্যাপিয়েন্সদের সমসাময়িক ও প্রায় একই বৈশিষ্ট্যপূর্ণ। তবে প্রথম পূর্বপুরুষ হোমো নিয়ান্ডারথ্যালেন্সিস্ বা নিয়ান্ডারথালরা।

কাঠামোটি প্রাগৈতিহাসিক মানুষগুলোর গার্হস্থ্য অনুষ্ঠানের নমুনা বলে ধারণা করছেন বিজ্ঞানীরা। প্রায় ৪০০ ভাঙা স্ট্যালগমাইটের বাইরে তৈরির পর সেটটি আগুনে পুড়িয়ে ফেলা হয় বলেও প্রমাণ পাওয়া যায়। অর্থাৎ, তারা শুধু সামাজিকতায়ই অভ্যস্ত ছিল না, আগুনের সঠিক ব্যবহারও বেশ ভালোভাবে আয়ত্ব করতে পেরেছিল লাখ লাখ বছর আগেই।

এ প্রজাতির ৪ লাখ ৩০ হাজার বছর বয়সী জীবাশ্মের জিনের সাম্প্রতিকতম ডিএনএ গবেষণা বলছে, আমরা অর্থাৎ আধুনিক (হোমো স্যাপিয়েন্স) মানুষেরা তাদের চেয়ে অনেক ক্ষেত্রে পিছিয়ে ছিলাম। আবার, প্রাক আধুনিক স্যাপিয়েন্সরা পৃথিবীতেও এসেছে অনেক পরে, মোটামুটি ২ লাখ বছর আগে।

নিয়ান্ডারথাল ও আধুনিক মানুষের সাধারণ পূর্বপুরুষও ছিল একই। হোমো অস্ট্রালোপিথ্যাকাস্দের থেকে সরাসরি পূর্বপুরুষ হোমো ইরেক্টাস হয়ে বিবর্তিত হয়েছি আমরা উভয়েই।

তারপরও আমাদের কাছে পরাজিত হয়েই নিয়ান্ডারথালরা ৩০ হাজার বছর আগে পৃথিবী থেকে হারিয়ে গেছে চিরতরে আর আমরা প্রচণ্ড প্রতাপে নেতৃত্ব দিয়ে চলেছি বিশ্ব জীববৈচিত্র্যের।

প্রায় ৬০ হাজার বছর আগে আফ্রিকা থেকে এশিয়া ও ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ে হোমো স্যাপিয়েন্সরা। অথচ ইউরোপে আমাদের বসবাস শুরুর আগেই এসেছিল নিয়ান্ডারথালরা। ৪০ হাজার বছর আগেও সেখানে তাদের পেয়েছিলাম আমরা। ঠাণ্ডা জলবায়ুতে মানিয়ে নিয়ে ২ লাখ বছর ধরে সফলভাবে বসবাস ছিল তাদের।

ওদিকে পূর্বপুরুষ হোমো হাইডেলবার্জেনসিস্ প্রজাতির অনুরূপ হলেও সমসাময়িক হোমো ডেনিসোভান থেকেও আলাদা ও বেশি গুণ ছিল নিয়ান্ডারথালের।

আমাদের নিকটতম স্বজনদের এসব নতুন নতুন গুণবাচক বৈশিষ্ট্য জানতে পেরে চমকে উঠছেন বিজ্ঞানীরা। এতো বেশি অভিযোজ্যতার ক্ষমতা পেয়েও কেন নিয়ান্ডারথালদের পরাজয় ও চিরতরে নির্মূল হওয়া?- সেটিও দীর্ঘকাল ভাবিয়েছে তাদেরকে।

বছরের পর বছর ধরে চলা গবেষণায় জেনেটিক কোড ম্যাপিং করে বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, হোমো নিয়ান্ডারথ্যালেন্সিস্ হল ডিএনএ ডি এনকোডেড হওয়া প্রথম বিলুপ্ত মানব প্রজাতি। নিয়ান্ডারথাল ডিএনএ’র সঙ্গে আমাদের জিনোমের তুলনা করে তারা এখন বলছেন, আধুনিক মানব প্রজাতি (হোমো স্যাপিয়েন্স) জেনেটিকালি অনন্য। তাই জেনেটিক্যাল দুর্বলতাকেও নিয়ান্ডারথালদের হারিয়ে যাওয়ার জন্য দায়ী করা হচ্ছে।

গবেষণা আরও প্রমাণ করে, অস্তিত্বের প্রথম ১ লাখ বছর ধরে আমাদের ডিএনএ’র কিছু অংশও সাধারণ পূর্বপুরুষদের থেকে নিয়ান্ডারথালদের সঙ্গে ভাগ করে পেয়েছি আমরা। অনেক জীবন্ত ইউরোপীয় ও এশীয়দের জেনোমে নিয়ান্ডারথাল জিন থাকার হারও ১ থেকে ৪ শতাংশ।

স্পেনের ডি লস হুওসোস সিমায় পাওয়া নিয়ান্ডারথালদের প্রাচীনতম ফসিলগুলো ছিল ২৮ জন পুরুষের। ৪ লাখ ৩০ হাজার বছরের পুরনো সিমা মানুষগুলোর ডিএনএ রেকর্ড বলছে, তারা পূর্বপুরুষ হোমো হাইডেলবার্জেনসিস্ প্রজাতির অনুরূপ হলেও ডেনিসোভানস্ থেকে জেনেটিক্যালি আলাদা।

ক্রোয়েশিয়ার ভিন্ডিজা গুহা থেকে পাওয়া প্রায় ৪৪ হাজার বছর বয়সী নিয়ান্ডারথাল জীবাশ্মের তিনটি হাড় থেকে নেওয়া ডিএনএ’র জিনোম মেপে বলা হয়েছে, জিনের পার্থক্যই দু’টি প্রজাতির মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য, যা ২ লাখ থেকে ৩০ হাজার বছর আগে পর্যন্ত সময়কালে ধীরে ধীরে গড়ে উঠেছে।

এ ফলাফলগুলোর ওপর ভিত্তি করে গবেষকরা জানান, ইউরোপিয়ান নিয়ান্ডারথাল ও আফ্রিকান হোমো স্যাপিয়েন্সের পূর্বপুরুষরা প্রথমবারের মতো যখন বিচ্ছিন্ন হয়, তখনই আমাদের প্রজাতি স্বতন্ত্র হয়ে ওঠে এবং চিত্তাকর্ষক নতুন সূচনা করে।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল



সর্বশেষ সংবাদ