বাংলা ফন্ট

ঢাকার বাইরে বদলি ঠেকাতে তৎপর চিকিৎসকরা

28-12-2017
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 ঢাকার বাইরে বদলি ঠেকাতে তৎপর চিকিৎসকরা




ঢাকা: বাংলাদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সম্প্রতি ঢাকায় কর্মরত ১১০জন চিকিৎসককে দেশের বিভিন্ন জায়গায় বদলি করেছে।

বদলির আদেশে বলা হয়েছে, বুধবারের মধ্যে ডাক্তাররা নতুন কর্মস্থলে যোগ না দিলে বর্তমান কর্মস্থল থেকে তারা কোন বেতন-ভাতা পাবেন না।

কিন্তু অনেক ডাক্তার এখনো নতুন কর্মস্থলে যোগ দেন নি। বদলি হওয়া কয়েকজন ডাক্তারের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের অনেক সহকর্মী বদলির আদেশ ঠেকাতে তৎপর।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে চিকিৎসক নেতাদের সাথে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বৈঠকে বসেছেন।

বদলীকৃত ১১০জন ডাক্তারের মধ্যে ৫৫জন বর্তমানে ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দি হাসপাতালে কর্মরত।

এছাড়াও স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, কুর্মিটোলা হাসপাতালসহ আরো কয়েকটি হাসপাতালের ডাক্তাররা রয়েছেন এ তালিকায়।

বাংলাদেশের চিকিৎসকরা ঢাকার বাইরের জেলায় কাজ করতে চান না। এমন অভিযোগ বেশ প্রবল।

অনেক চিকিৎসক আছেন যারা তাদের প্রভাব খাটিয়ে বছরের পর বছর রাজধানীতে কাজ করছেন।

গ্রামাঞ্চলে চিকিৎসা সেবা নিয়ে যারা আন্দোলন করেন তাদের অভিযোগ হচ্ছে, বড় শহরগুলোর বাইরে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করার সুযোগ কম থাকায় চিকিৎসকরা সেদিকে যেতে অনাগ্রহী।

ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক একেএম সাইফ উদ্দিনকে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজে ও হাসপাতালে বদলি করা হয়েছে।

তিনি নাক, কান ও গলা বিভাগের একজন চিকিৎসক।

সাইফ উদ্দিন বলেন, " আমাকে যেহেতু সরকার আদেশ দিয়েছে, সেজন্য যেতে হবে।"

চিকিৎসকদের ঢাকার বাইরে যাবার ব্যাপারে অনীহা কেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবার অনীহা নয়, অনেকে হয়তো ঢাকার বাইরে যেতে চায় না।

এজন্য প্রধানত দুটো কারণ আছে বলে তিনি মনে করেন।

প্রথমত; ভালো আবাসনের ব্যবস্থা নেই। দ্বিতীয়ত; সন্তানদের ভালো স্কুলে শিক্ষাদানের সুযোগ নেই।

তাছাড়া সিনিয়র এবং বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের ঢাকার বাইরে কাজ করার সুযোগ সীমিত বলে তিনি উল্লেখ করেন সাইফ উদ্দিন।

তাঁর সাথে একমত পোষণ করেন আরেকজন চিকিৎসক। সহযোগী অধ্যাপক পদমর্যাদার সে চিকিৎসক নাম প্রকাশ করতে চান নি।

তিনি বলেন, "আমি মুখের ক্যান্সার বিষয়ক একজন চিকিৎসক। সারাদেশ থেকে রোগীরা যখন সমস্যা নিয়ে ঢাকায় আসে তখন আমি তাদের প্রয়োজনে সার্জারি করতে পারি। কিন্তু আমাকে প্রত্যন্ত এলাকায় বদলী করলে দেশের অন্য জায়গা থেকে আমার কাছে রোগীরা আসবে কীভাবে?"

বদলি হওয়া আরো কয়েকজন চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে অনেকটা একই ধরণের মনোভাব জানা যায়। তবে সরকারি চাকরির কারণে তারা নামপ্রকাশ করতে চাননি।

ডাক্তাররা স্বীকার করছেন যে তাদের অনেক সহকর্মী বদলি ঠেকানোর জন্য রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বিভিন্ন সময় বলেছেন যে ডাক্তারদের ঢাকার বাইরে গিয়ে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে।

এমন অভিযোগও উঠেছে কিছু ডাক্তার ঢাকার বাইরে তাদের কর্মস্থলে উপস্থিত থাকেন না।

সরকারের দিকে থেকে বিভিন্ন সময় কঠোর বার্তা দেয়া হলেও তাতে দৃশ্যমান কোন লাভ এখনো পর্যন্ত হয়নি।

মোহাম্মদ নাসিম বলছেন, এর আগেও নানাভাবে বলার পরেও অনেক ডাক্তারকে ঢাকার বাইরে পাঠানো যায়নি। তাই বাধ্য হয়ে এবার কড়া করে বলতে হয়েছে, যে তারা নতুন কর্মস্থলে না গেলে এখানেও বেতনভাতা পাবেন না।

নতুন করে আরো পাঁচ হাজার চিকিৎসক নিয়োগের কথা ভাবছে সরকার, যাদের পদায়নও হবে গ্রামীণ এলাকায়, বলছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

বাংলাদেশে স্বাস্থ্য অধিকার নিয়ে কাজ করেন ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি মনে করেন, ভালো আবাসন এবং সন্তানদের শিক্ষার কথা বলে অনেক ডাক্তার 'অজুহাত' তুলে ধরছেন।

ডা: চৌধুরী বলেন, "ঢাকা নগরী ডাক্তারদের যানজটে পরিনত হয়েছে। অন্য সরকারী অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যদি ঢাকার বাইরে কাজ করতে পারেন তাহলে ডাক্তাররা পারবেন না কেন?"

তিনি বলেন, সেজন্য একটি সুনির্দ্দিষ্ট পদ্ধতি গড়ে তোলা দরকার যাতে একটি নির্দ্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ডাক্তারা গ্রামীণ এলাকায় কাজ করতে বাধ্য হন।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল



সর্বশেষ সংবাদ